নিজের তৈরি ‘করোনার ওষুধ’ খেয়ে সঙ্গে সঙ্গেই মৃত্যু!

ঢাকা অফিস : বিশ্বজুড়ে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের ওষুধ তৈরি করতে হিমসিম খাচ্ছেন পুরো বিশ্বের বিজ্ঞানীরা। এখনো তারা আবিষ্কার করতে পারেন করোনা ভাইরাসের ওষুধ। এমন সময় ঘটলো ভয়ঙ্কর এক কাণ্ড। নিজের তৈরি করা ‘করোনার ওষুধ’ সেবনে প্রাণ গেলো কে. শ্রীবানেশন নামে এক ব্যক্তির। বৃহস্পতিবার ভারতের চেন্নাইয়ে এ ঘটনা ঘটেছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, চেন্নাই শহরের টি-নগরের আয়ুর্বেদিক কোম্পানি সুজাতা বায়োটেক এর ফার্মাসিস্ট কাম ম্যানেজার হিসেবে কাজ করতেন কে শ্রীবানেশন নামে ৪৭ বছরের এক ব্যক্তি। ৩০ বছরের পুরনো এই কোম্পানিতে বহুদিন ধরেই কাজ করছেন শ্রীবানেশন। এর আগে একাধিক ওষুধ তৈরি করেছেন।

কোম্পানির উত্তরাখণ্ডের কারখানাতেই থাকতেন শ্রীবানেশন। তবে লকডাউনের সময়ে তিনি আটকে পড়েছিলেন চেন্নাইয়ে। গত বৃহস্পতিবার তিনি একটি পাউডার কারখানায় আনেন। তার নিজেরই তৈরি। সেটি নাকি করোনার সঙ্গে লড়াই করতে সক্ষম। ওই পাউডারের সামান্য অংশ পরীক্ষা করা হয় কোম্পানির ৬৭ বছরের মালিকের ওপরে। পাউডার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই ব্যক্তি অজ্ঞান হয়ে যান। তার পরই ওই পাউডারটি জল অন্য একটি তরলে গুলে নিজেও খেয়ে ফেলেন শ্রীবানেশন। কোম্পানির মালিক বেঁচে গেলেও শ্রীবানেশন বাঁচেনি।

পুলিশের দাবি, শ্রীবনেশনের ধারণা ছিল ওই পাউডার করোনার সঙ্গে লড়াই করতে সক্ষম। এতে রক্তে প্লেটলেটের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।

কোম্পানির মিডিয়া ম্যানেজার এন এস ভাসান সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, আমাদের সব ওষুধই আয়ুর্বেদিক। কিন্তু শ্রীবানেশন যে ওষুধ তৈরি করে ছিল তা একটি রাসায়নিক। বাজার থেকে ও তা কিনে এনেছিল।