সরকারি স্কুলে ভর্তির অনলাইনে আবেদন শুরু ১৫ ডিসেম্বর

ঢাকা অফিস: মাধ্যমিক পর্যায়ের সরকারি স্কুলে ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন শুরু হবে আগামী ১৫ ডিসেম্বর। আবেদন গ্রহণ চলবে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ৩০ ডিসেম্বর সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভর্তি লটারি অনুষ্ঠিত হবে, সে দিন বিকেলে ফলাফল প্রকাশ করা হবে। বিদ্যালয়ে ভর্তিসংক্রান্ত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) থেকে পাঠানো প্রস্তাব গতকাল বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দিয়েছে বলে জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মাউশির উপপরিচালক এনামুল হক জানিয়েছেন, ঢাকার সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভর্তি নীতিমালা অনুমোদন দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তিনি বলেন, এতে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। ৪০ শতাংশ ক্যাচমেন্ট এরিয়ার পরিবর্তে ৫০ শতাংশ করা হয়েছে। ভর্তি ফরমের মূল্য ১৭০ টাকার বদলে ১১০ টাকা করা হয়েছে। অনলাইন আবেদন আগামী ১৫ থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে। ৩০ ডিসেম্বর সব স্কুলে এক দিনে লটারি আয়োজন করা হবে।

তিনি আরো বলেন, আগের মতো আর স্কুলে বড় আয়োজনের মাধ্যমে লটারি অনুষ্ঠিত হবে না। একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভর্তি লটারি অনুষ্ঠিত হবে। টেলিটক মোবাইল কোম্পানির সহায়তায় এটি পরিচালিত হবে। ভর্তি কার্যক্রম শুরু করতে গতকালই বিজ্ঞপ্তি জারির সম্ভাবনার কথা জানান তিনি।

সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগরীতে ৩৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও তিনটি শাখা রয়েছে। ঢাকার এই বিদ্যালয়গুলোতে প্রথম থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত আসন আছে সাড়ে ১১ হাজারের মতো। এর সাথে জাতীয়করণ হওয়া আরো দু’টি বিদ্যালয়ও যুক্ত হচ্ছে। এগুলোতে মাউশির অধীন কেন্দ্রীয় ব্যবস্থাপনায় ভর্তির কাজটি করা হয়। এবারো বিদ্যালয়গুলোকে তিনটি গুচ্ছে বা ভাগ (এ, বি এবং সি) করে ভর্তির কাজটি করা হবে। এবার একজন শিক্ষার্থী একটি গুচ্ছের পাঁচটি বিদ্যালয়ে ভর্তির পছন্দক্রম দিতে পারবে। এখান থেকে লটারির মাধ্যমে একটি বিদ্যালয় নির্বাচন করা হবে। এত দিন একজন ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থী একটি গুচ্ছের মাধ্যমে একটি বিদ্যালয়কে বেছে নিতে পারত।

জানা গেছে, টেলিটক মোবাইলের মাধ্যমে ঢাকা মহানগরীর সব ক’টি সরকারি বিদ্যালয়ের ভর্তির আবেদন অনলাইনে করতে হবে। সফটওয়্যার ব্যবহার করে অনলাইনেই লটারির কাজ করা হবে, এতে সময় কম লাগবে। এ জন্য ৩০ ডিসেম্বর এক দিনেই সব ক’টি বিদ্যালয়ের লটারির প্রস্তাব করা হয়। এরপর নির্বাচিত বিদ্যালয়ে ভর্তি হবে শিক্ষার্থীরা। ঢাকার বাইরের সরকারি বিদ্যালয়গুলোতেও অনলাইনে আবেদন গ্রহণ করা হবে।
শীর্ষবাণী/এনএন