মুসলিম দেশগুলোতে বিশেষ দূত নিয়োগ দিচ্ছে ফ্রান্স

ঢাকা অফিস : মহানবীকে (সা.) বিদ্রূপ করে কার্টুন প্রকাশে সমর্থন ও ইসলামবিদ্বেষী মন্তব্যের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে মুসলিম দেশগুলোতে বিশেষ দূত নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফ্রান্স। তারা মুসলিম দেশগুলোতে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা ও বাকস্বাধীনতা’ নিয়ে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর চিন্তা-ভাবনা ব্যাখ্যা করবেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ম্যাক্রোঁর বিতর্কিত বক্তব্য কেন্দ্র করে মুসলিম দেশগুলোতে চলমান বিক্ষোভের মুখে ফরাসি সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে খবরে বলা হয়েছে। গত মাসের শুরুতে প্যারিসের উপকণ্ঠে স্যামুয়েল প্যাটি নামে এক স্কুলশিক্ষককে হত্যা করা হয়। তিনি ইসলামের নবীর (সা.) বিতর্কিত ব্যঙ্গচিত্র ক্লাসে তার ছাত্রদের সামনে প্রদর্শন করেছিলেন।

এই হামলার পর প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর মন্তব্য করেছিলেন, ফ্রান্স কখনও সহিংসতার কাছে নতিস্বীকার করবে না। ম্যাক্রোঁর তার বক্তব্যে মুসলমানদের বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

এ ছাড়া মহানবীকে (সা.) বিদ্রূপ করে প্রকাশিত কার্টুনকেও সমর্থন করেছেন তিনি। এতে বিক্ষোভের পাশাপাশি ফরাসি পণ্য বয়কটেরও ডাক দিয়েছেন মুসলমানরা। এ ঘটনার জের ধরে ফ্রান্সের সঙ্গে মুসলিম দেশগুলোর সম্পর্কে উত্তেজনা তৈরি হয়েছিল।

ম্যাক্রোঁর অবশ্য তার ভাবনার মূল্যায়নের জন্য কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে দীর্ঘ সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। ইসলামবিদ্বেষী মন্তব্যের কারণে সৃষ্ট তীব্র প্রতিক্রিয়ার মুখে সুর নরম করলেও ক্ষমা চাননি ফরাসি প্রেসিডেন্ট।

আলজাজিরাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে কথা বিকৃতভাবে উপস্থাপিত হওয়ায় অভিযোগ করেন ম্যাক্রোঁর। তবে তার বক্তব্যে বিশ্বব্যাপী ক্ষোভ সৃষ্টি হলেও এর জন্য দুঃখপ্রকাশ করেননি তিনি।