ভোলায় বিদ্যুতের লোডশেডিং বিষয়ে পল্লী বিদ্যুত সমিতির বক্তব্য

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলা পল্লী বিদ্যুত সমিতির আওতাধীন ৪টি উপজেলায় বর্তমানে মারাত্মক লোডশেডিং হচ্ছে। ফলে প্রতিনিয়ত ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এই ৪টি উপজেলার বিদ্যুত গ্রাহকরা। ইতোমধ্যে লোডশেডিং থেকে মুক্তির দাবিতে বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন চিলেকোঠা’র আয়োজনে চরফ্যাশন সদর রোডে মানববন্ধন হয়েছে।

জানা গেছে, বিদ্যুত গ্রাহকরা বিদ্যুত বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপর মারাত্মক ক্ষুব্ধ। জনক্ষুব্ধতা থেকে রক্ষা পেতে ভোলা পল্লী বিদ্যুত সমিতি ৩ আগস্ট তাদের ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমে গ্রাহকদের উদ্দেশ্যে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে।

বিবৃতিটি হুবহু প্রকাশ করা হলো:
ভোলা পল্লী বিদ্যুত সমিতির আওতাধীন বোরহানউদ্দিন, তজুমদ্দিন, লালমোহন ও চরফ্যাশন উপজেলায় বর্তমানে মোট বিদ্যুৎ এর চাহিদা ৫০ মেগাওয়াট। অত্র পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির উক্ত ৪ উপজেলায় বর্তমানে ৫টি ৩৩/১১ কেভি উপকেন্দ্র রয়েছে। যার মোট ক্ষমতা ৭০ এমভিএ। অর্থাৎ চাহিদার তুলনায় উপকেন্দ্রের ক্ষমতা বেশি। তারপরও এই উপজেলাগুলিতে গড়ে ৬ মেগাওয়াট লোডশেডিং হচ্ছে। কারণ এই চার উপজেলা বিদ্যুৎ পায় বোরহানউদ্দিন ২২৫ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্টের ভেতরে অবস্থিত ৪৪ এমভিএ ট্রান্সফরমার হতে। যা বর্তমানে ওভারলোড আছে। তাই বর্তমানে এই প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যে লোড শেডিং করার প্রয়োজন হচ্ছে। যার জন্য ভোলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি দায়ী নহে।

তবে আশার কথা, বোরহানউদ্দিন পাওয়ার প্লান্টের ভেতর ৪৪ এমভিএ এর পাশাপাশি আরও একটি ১২০ এমভিএ ট্রান্সফরমার স্থাপনের কাজ চলছে যা আগামী এপ্রিল ২০২১ নাগাদ চালু হবে। বিষয়টি সকলের অবগতির জন্য প্রচার করা হল।
শীর্ষবাণী ডটকম/এনএ