ভোলার গ্যাসের বিনিময়ে অর্থমূল্য দাবী করেছে বিডিএফ

ভোলা প্রতিনিধি: দ্বিতীয় পর্যায়ে ভোলাতে বিশাল গ্যাস এর মজুদ প্রাপ্তির সংবাদের সাথে সাথে বিডিএফ এর পক্ষ হতে ভোলাবাসীকে জানানোর ব্যবস্থা করা হয়। সেখানে বিডিএফ এর সাথে ভোলাবাসীর একই দাবী যে, ভোলার প্রাপ্তিটা কেথায়? বিডিএফ অনেক খোঁজাখোঁজি করে পেট্রোবাংলার মাধ্যমে প্রাপ্ত গ্যাস এর অর্থমূল্য সম্পর্কে ধারণা পেয়েছে। তা এখানে ভোলাবাসীর বিবেচনার জন্য তুলে ধরা হল।

ভোলায় প্রাপ্ত মোট গ্যাসের পরিমাণ ১ ট্রিলিয়ন ঘনফুট।
উত্তোলন, পরিসঞ্চালন ও আনুষজ্ঞিক ব্যয় বাদ দিলে প্রতি ঘনফুট গ্যাসের বাজার মূল্য দাড়ায় ০.২০৮১২২ টাকা। তার মানে ২০ পয়সা। (বিক্রয় মূল্য হিসেবে শতগুণেরও বেশি)
প্রতি ঘনফুট গ্যাসের মূল্যকে ১ ট্রিলিয়ন দিয়ে গুণ করলে ফল দাঁড়ায় ২০ হাজার ৮১১ কোটি টাকা।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চলতি অর্থ বছরে আমাদের নদীভাঙ্গন প্রতিরোধে দিয়েছেন ২ হাজার কোটি টাকার মত, যা পাঁচ বছরে ব্যয় হবে। মহান আল্লাহর রহমতে ভোলা দেশকে দিয়েছে এখাতেই ২০ হাজার কোটি টাকা। আর উদ্বৃত্ত খাদ্য শষ্য এবং মৎস্য সম্পদে চিরকাল দিয়ে আসছে আমাদের ভোলা।

সেসব বিবেচনায় আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে মাত্র ৫ হাজার কোটি টাকার বিনিময় দাবী করি:
১) ভোলাতে ১টি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন এখন সময়ের দাবী।
২) ভোলার ঘরে ঘরে গ্যাস পৌঁছানোর দাবী।
৩) ভোলার যানবাহন যেন গ্যাস ব্যবহার করতে পারে সেরুপ ব্যবস্থা গ্রহণ।
৪) খাদ্যশষ্য এবং মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণের জন্য পর্যাপ্ত হিমাগাড় তৈরি।
৫) ফুড প্রোসেসিং এবং মৎস্য প্রোসেসিং ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলার ব্যবস্থা গ্রহণ।
৬) ভোলা-লক্ষ্মীপুর ফেরি রুটে ড্রেজিং করে রুটটিকে কার্যকর করে ভোলার সাথে ২১ টি জেলার কানেক্টিভিটি বাড়ানো।
৭) ভোলার গ্যাস ও বিদ্যুৎ কাজে লাগিয়ে একটি বৃহৎ শিল্প যেমন কাগজ কল ভোলায় করা যায় কিনা তার একটি সমিক্ষা চালানো।
৮) ভোলার নারিকেল সুপারির ছোবড়া ব্যবহার করে এক্সপোর্ট কোয়ালিটির ইন্ডাস্ট্রে করা যায়।
৯) ভোলার অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোর উন্নয়ন এবং ভোলা-চরফ্যাশন আঞ্চলিক মহাসড়কটিকে অন্তত ডাবল লাইনের করা।
১০) ভোলার কর্মসংস্থানের জন্য আরো কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায় সে বিষয়ে সমীক্ষা চালানো বা ভোলা দ্বীপ-উন্নয়ন বোর্ড গঠন করা।

এসব দাবীর সাথে একমত হলে আমাদের ভোলাবাসীগণ আওয়াজ তুলুন। মতামত দিন। আপনাদের মূল্যবান মতামত হয়তো ভোলাকে এগিয়ে নিতে অনেক সাহায্য করতে পারে। আমাদের দাবীর সাথে আপনাদের মূল্যবান মতামতকে সংযুক্ত করে বিডিএফ এর পক্ষ হতে সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে যাওয়ার পথকে সুগম করুন।

(এম জহিরুল আলম এর ফেসবুক থেকে নেওয়া :যিনি ভোলা জেলা সমিতি, চট্টগ্রাম এর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। ভোলা-লক্ষ্মীপুর ফেরি বাস্তবায়ন জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ভোলা ডেভেলপমেন্ট ফোরাম এর সাধারণ সম্পাদক।)
শীর্ষবাণী ডটকম/এনএ