ফিটনেস টেস্টে নেই মাশরাফি, আছেন সাকিব

ঢাকা অফিস : পাঁচ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের জন্য ১১৩ ক্রিকেটারের ফিটনেস টেস্ট নিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। আগামী ৯ ও ১০ নভেম্বর ক্রিকেটারদের ফিটনেস টেস্ট নেয়া হবে। এতে কোন কোন ক্রিকেটারকে রাখা হয়েছে, বুধবার তার একটি তালিকা প্রকাশ করেছে বিসিবি।

এ তালিকায় আছেন আইসিসির নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরা তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। যারা বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে খেলেছেন এবং হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের অনুশীলন ক্যাম্পে রয়েছেন, তাদের কারও নাম নেই তালিকায়।

তাদের ফিটনেস টেস্ট দিতে হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। তালিকায় নেই সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও। তবে সেখানে তার নাম না থাকার কারণ ভিন্ন।

জানা গেছে, করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ও দীর্ঘদিন খেলার বাইরে থাকায় ফিটনেসে ঘাটতি দেখা দেয় মাশরাফির। তাই মাঠে ফিরতে শারীরিক অনুশীলন শুরু করেছিলেন তিনি। গত ২২ অক্টোবরে মিরপুর সিটি ক্লাব মাঠে ফিটনেস পরীক্ষায় নেমেছিলেন মাশরাফি। আর সেদিন দৌড়ানোর সময় হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগে তার। আর সে জন্যই সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ককে রাখা হয়নি এ ফিটনেস পরীক্ষায়।

বিসিবি সূত্র জানায়, আগামী ৯ ও ১০ নভেম্বর মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে হবে ক্রিকেটারদের ফিটনেস পরীক্ষা। ফিটনেস পরীক্ষায় উতরাতে না পারলে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টির ড্রাফটে নাম থাকবে না। সে হিসাবে প্রেসিডেন্টস কাপের মতো পাঁচ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টেও মাশরাফির অনুপস্থিতির বিষয়টি নিশ্চিত।

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি থেকে মাশরাফি অবসব নিয়েছেন অনেক আগেই। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন বলে জানা গিয়েছিল। কিন্তু সেটি হয়নি। অবসরে না গেলেও অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন।

তার অবসর নিয়ে নানা সমালোচনার জন্ম দিলেও মাশরাফিই যে বাংলাদেশের সফলতম ওয়ানডে অধিনায়ক তা বলতে বাধ্য সমালোচকরাও। এখন পর্যন্ত ৮৭ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করে বাংলাদেশকে এনে দিয়েছেন ৪৯টি জয়। হার দেখেছেন ৩৬ ম্যাচে। আর ফল হয়নি মাত্র দুই ম্যাচে।