চরফ্যাশন হাসপাতালে শিশু ধর্ষণের চেষ্টা, গ্রেফতার ২

আমিনুল ইসলাম, চরফ্যাশন: চরফ্যাশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা স্বজনকে দেখতে এসে ১১ বছরের শিশু ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হয়েছেন। চরফ্যাশন থানা পুলিশ অভিযুক্ত দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছেন৷

শনিবার (২২ আগস্ট) বিকেল সাড়ে ৫টায় চরফ্যাশন সরকারি হাসপাতালের ৫ম তলায় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর শনিবার রাতেই ভিক্টিম শিশু বাদী হয়ে দুইজনকে আসামি করে চরফ্যাশন থানায় ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন।

চরফ্যাশন থানা পুলিশ রাতেই অভিযুক্ত রিপন (২৫) ও তামিম (১৮) নামের দুই যুবককে গ্রেফতার করেছেন৷ রোববার (২৩ আগস্ট) তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

স্থানীয়দের তথ্যমতে, গ্রেফতারকৃত যুবকরা চরফ্যাশন হাসপাতাল ভবনে অবস্থান করে দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষার জন্য দালালী করে আসছিল। গ্রেফতারকৃত যুবক রিপন আছলামপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মোঃ জামালের ছেলে ও তামিম চর মাদ্রাজ ইউনিয়নের চর আফজাল গ্রামের আবদুল করিম বেপারীর ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানাযায়, চরফ্যাশন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খালাতো বোনকে দেখার জন্য খালার সাথে ভিক্টিম কিশোরী হাসপাতালে আসেন। শিশুটি নবনির্মিত দৃষ্টিনন্দন ১০০ শয্যার চরফ্যাশন হাসপাতালটি ঘুরে দেখছিলেন। ঘুরতে ঘুরতে শিশুটি ৪র্থ তলার সিড়িঁতে অবস্থান করছিলেন। এসময় ডায়াগনিস্টিক সেন্টারের দালালখ্যাত রিপন ও তামিম নামের দুইজন তার নাম পরিচয় জানতে চান। শিশুটি নিশ্চুপ থাকলে আসামি রিপন তাকে হাত ধরে টেনে মুখ চেপে জোড়পূর্বক হাসপাতালের ৫ম তলায় নিয়ে যান। এই তলায় এখনো রোগী রাখার কোন ব্যবস্থা করা হয়নি। ৫ম তালাটি নির্জন এবং ব্যবহার অযোগ্য রয়েছে৷

এসময় রিপনের সাথে তামিমও যোগদেন। দু’জনে মিলে নির্জন ৫ম তালার পশ্চিম পাশের ৫১৭নং কক্ষে নিয়ে শিশুকে জোড়পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করেন। শিশুটির ডাক চিৎকারে ৪র্থ তলা থেকে লোকজন ছুঁটে আসলে রিপন ও তামিম পালিয়ে যায়।

চরফ্যাশন হাসপাতালের ইউএইচও ডা. শোভন বসাক বিষয়টি চরফ্যাশন থানাকে অবহিত করেন৷ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে রাতেই দু’জনকে গ্রেফতার করেন।

চরফ্যাশন থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি মোঃ মনিরুল ইসলাম মিয়া জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার মামলা নেওয়া হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের আজ রোববার সকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
শীর্ষবাণী ডটকম/এনএ