আবারও চরফ্যাশন পৌর মেয়রের অভিযানে ১শ’ ৬৫ পিস মরা মুরগি উদ্ধার, আটক ১

আমিনুল ইসলাম: চরফ্যাশন বাজারের মুরগি ব্যবসায়ী মোঃ ইয়াছিনকে (৩৫) ১শ’ ৬৫ পিস মরা মুরগীসহ আটক করা হয়েছে। পৌর মেয়র মোঃ মোরশেদ মিয়া গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারি ও থানা পুলিশের সহযোগিতায় এসব মুরগী জব্দ করেন৷

শনিবার (২৪ জুলাই) বিকাল ৩টার সময় চরফ্যাশন বাজার মুরগি পট্টি ইয়াছিনের নিজ দোকান থেকে এসব মরা মুরগী উদ্ধার করা হয়৷ আটককৃত ইয়াছিনের বাড়ি পৌরসভা ৯নং ওয়ার্ড। সে তাজল ইসলামের ছেলে।

জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চরফ্যাশন পৌরসভার মেয়র মোঃ মোরশেদ ঐ দোকানে অভিযানকালে ৩টি বস্তাভর্তি মরা মুরগি দেখতে পায়৷ ঘটনাস্থল থেকে মরা মুরগি ও দোকান মালিককে আটক করে পৌর ভবনে নিয়ে আসেন৷ পৌর ভবনের সামনে আনা হলে উৎসুক জনতা মরা মুরগি ও মালিককে দেখার জন্য ভীড় করেন। এসময় পৌর ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকতারুল আলম সামু, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাঈনুল ইসলাম মনির সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন৷

অভিযুক্ত ইয়াছিন বলেন, সাতক্ষীরা থেকে ব্যবসার উদ্দেশ্যে ৪শ মুরগী ক্রয় করে চরফ্যাশনে আনা হয়৷ আনার পথে কিছু এবং দোকানে নামানোর পরে কিছু মুরগি মারা যায়৷ মরা মুরগীগুলো কোন হোটেলে বিক্রির উদ্দেশ্য ছিলোনা। এসব মরা মুরগী মাটি চাপা দেয়ার জন্য বস্তাবন্দি করে রাখা হয়েছে।

চরফ্যাশন পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারি মোঃ ইকবাল জানান, মরা মুরগিগুলো পৌরসভার নিজ দায়িত্বে গভীর মাটির নিচে চাপা দেয়া হয়েছে৷ এমন ভূল আর কখনো হবেনা এই মর্মে জনসম্মূখে মুছলেখা দিলে অভিযুক্ত মুরগী ব্যবসায়ী ইয়াছিনকে পৌরসভা কর্তৃক ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷

উল্লেখ্য ৩ মাস পূর্বে পৌর মেয়র মোঃ মোরশেদ অভিযান চালিয়ে চরফ্যাশন বাজারের একটি দোকান থেকে ড্রেসিং করার সময় ৩শত ৫০পিস মরা মুরগি উদ্ধার এবং মুরগির মালিক কে আটক করেছিলেন৷ সে সময় মরা মুরগিগুলো বাজারের দুইটি হোটেলে বিক্রি করার তথ্যও নিশ্চিত করা হয়েছিল৷ সেই আশঙ্কা থেকে অধিকাংশ স্থানীয়দের দাবি মুরগি ব্যবসায়ী ইয়াছিন এসব মরা মুরগী যেকোনো হোটেল-রেস্তরায় সরবরাহের অপেক্ষা করছিল।
শীর্ষবাণী/এনএ